ফটোগ্রাফী যার নেশা থেকে পেশা

লিখেছেন :জি,এম-আদল

কৌশিক হাজরা

একটি ফটোগ্রাফ দর্শকের মগজে একটা গল্প তৈরি করে দেয় । একটা সময়ের গল্প, একটা মুহূর্তের গল্প, কখনও একটা জীবনের গল্প ।
আর ক্যামেরার কৌশলে যারা এই সৃজনশীল শৈল্পিক কাজটি করে থাকেন তাদেরকে বলা হয় ফটোগ্রাফার।তেমনি এক শৈল্পিক ফটোগ্রাফারের নাম কৌশিক হাজরা।
কালারস সট ফটোগ্রাফি টিম
আদম্য ইচ্ছা ও পরিশ্রমই যে মানুষকে সফল করে তুলতে পারে তা যে মানুষটি  দেখলে সহজে ই বোঝা যায় তিনি আর কেউ নয় আমাদের পিরোজপুরের  বহুল পরিচিত মুখ, তরুণ ফটোগ্রাফার,  "কালারস সট ফটোগ্রাফি"র স্বত্বাধিকারী ও এটির চীফ ফটোগ্রাফার কৌশিক হাজরা। ফটোগ্রাফি যার নেশা ও পেশা।ফেসবুকে অনেকেই যাকে আমরা জন কুশ নামেই চিনি।বয়সে তরুন এই ফটোগ্রাফারের জন্ম, বেড়েওঠা পিরোজপুরের মাছিমপুরে।পড়াশুনাও পিরোজপুরেই।
২০১৩ সালে তার প্রথম যাত্রা এই ফটোগ্রাফি জগতে। শুরুটা হয় একটা বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়ে সেখানে কৌশিককে নিমন্ত্রন জানানো হয়েছিল কিন্তু সেখানে  তার কাছের বড় ভাইয়ের  একটা এস এল আর ক্যামেরা ছিল,ডি এস এল আর তখন অতোটা জনপ্রিয় হয়ে ওঠেনি সবার মাঝে৷  তার ঐ কাছের বড় ভাই তাকে উপেক্ষা করে তাকে ক্যামেরাটি দেয়নি।
ওই দিন থেকেই কৌশিকের মাথায় একটা জেদ চেপে বসে ক্যামেরা দিয়েই কিছু একটা করার।
কৌশিক হাজরা
এই পেশায় আশার ক্ষেত্রে অনেক বন্ধুরা তাকে উৎসাহ দিয়েছে।যেহেতু কৌশিকের বাবার স্টুডিও ছিল, বন্ধুরাও অনেকে কৌশিকের কাছে ছবি তোলার আবদার করত।কাছের বড় ভাইয়ের ক্যামেরা দেখতে না দেয়ার  জেদ আর বন্ধুদের ছবি তোলার আবদার সব মিলিয়ে এই পথচলার শুরু।এর পরে বাবার কাছে ক্যামেরা চাইলে বাবাও তাকে কিনে দিল  Canon eos 600 D crop sensor ক্যামেরা।এই ক্যমেরাটা দিয়েই পথ চলা শুরু।
২০১৩ সালে "কালারস সট ফটোগ্রাফি" নামে ফটোগ্রাফি পেজ  খোলেন। পেজের ফ্যান ফলোয়ার বাড়তে থাকে,তার ছবি তোলার আগ্রহও আস্তে আস্তে বাড়তে থাকে। প্রথম যেহেতু একাই ছিলেন,তার কাজের প্রচারের লোক তেমন ছিল না তাই অনেকেরই ফ্রী ছবি তুলে দিয়েছেন কৌশিক।এর পরে এমন চলতে লাগল প্রায় ২ বছর। এর পরে একজন দুজন করে লোক নিয়ে একটা ছোট্ট টিম তৈরি করে টুকটাক বিয়ের কাজ শুরু করলেন।
জীবনের তার  প্রথম আনুষ্ঠানিক  ফটোগ্রাফী শুরু হয়েছিল খুলনায় একটি  বিয়ের ইভেন্ট দিয়ে।তখন হাতে ছিল মাত্র একটা ক্যামেরা, একটা কিট লেন্স, আর একটা ফ্লাস । এত সীমাবদ্ধাতার মাঝেও ক্লায়েন্ট তার ফটোগ্রাফিতে এতই খুশি হয়েছিল যে, এর পরে ২০২০ সাল পর্যন্ত ঐ ক্লায়েন্টের  ফ্যামিলিরই ৫ টা ইভেন্ট করেছে কৌশিকের  প্রতিষ্ঠান  "কালারস সট ফটোগ্রাফি"। শুরু থেকে এখন পর্যন্ত নানা জায়গায় শতাধিক কাজ করেছে "কালারস সট ফটোগ্রাফি" এবং কৌশিক হাজরা।
কালারস সট ফটোগ্রাফী টিম

যাত্রার শুরুটা বাবার কিনে দেয়া Canon eos 600 D crop sensor ক্যামেরা দিয়ে শুরু হলেও এখন তার প্রতিষ্ঠানে রয়েছে অত্যাধুনিক অসংখ্য  ক্যামেরা,লেন্স সহ ৭ জনের একটি দারুন টিম।এই পথচলায় পেয়েছেন অনেক মানুষের ভালবাসা,হয়ে উঠেছেন অনেক তরুন ফটোগ্রাফারদের আইকন।
খুব সহজে তিনি এতদূর আসেননি। যতদূর এসেছেন তার জন্য প্রয়োজন হয়েছে সততা আর পরিশ্রমের।
আগামীতে বৃহৎ পরিসরে নিয়ে যেতে চান তার ফটোগ্রাফী প্রতিষ্ঠান  ''কালারস সট ফটোগ্রাফি"কে। ওয়েডিং ফটোগ্রাফী নিয়ে দেশজুড়ে কাজ করার পরিকল্পনা রয়েছে তার।

0/Post a Comment/Comments

Previous Post Next Post