পিরোজপুর যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের অধীনে প্রশিক্ষণের সুযোগ




বেকার যুবক ও পুরুষের পাশাপাশি নারীদেরকে উন্নয়নের মূল স্রোতধারায় নিয়ে আসতে  গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনন্য প্রচেষ্টার মধ্যে একটি প্রশিক্ষণ কার্যক্রম ও আত্মকর্মসংস্হান কর্মসূচি।যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর এই প্রচেষ্টার বিশেসায়িত প্রতিষ্ঠান।

১।প্রশিক্ষণ সংক্রান্ত সেবা সমূহযুব উন্নয়ন অধিদপ্তর সাধারণত ২ ধরণের প্রশিক্ষন সেবা দিয়ে থাকে।
ক) প্রাতিষ্ঠানিক ট্রেডে প্রশিক্ষন ।
খ) অপ্রাতিষানিক ট্রেডে প্রশিক্ষন ।
ক) প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ ট্রেড সমুহঃট্রেডের নামঃ

১।গবাদিপশু,হাঁস-মুরগী পালন উহাদের প্রাথমিক চিগিৎসা,মৎস চাষ ও কৃষি বিষয়ক প্রশিক্ষণ কোর্স।
মেয়াদঃ ২ মাস ১৫ দিন।
প্রশিক্ষণ শুরুর সময় ঃ প্রধান কার্যালয়ের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক।
আসন সংখ্যা -৬০ জন ( আবাসিক )।
শিক্ষাগত যোগ্যতা – নুন্যতম ৮ম শ্রেণী পাস।
ভর্তি ফি -১০০ টাকা এবং  জামানত ফি ১০০ (ফেরতযোগ্য)।
প্রতি মাসে প্রশিক্ষণার্থীদের খাবার বাবদ ১২০০ টাকা ভাতা প্রদান করা হয়।

২।মডার্ণ অফিস ম্যানেজমেন্ট এন্ড কম্পিউটার এ্যাপ্লিকেশনঃ
মেয়াদ-৬ মাস।
প্রশিক্ষণের ভর্তি বিজ্ঞপ্তির সময় - প্রতি ডিসেম্বর ও জুন মাসে।
প্রশিক্ষণ শুরুর সময়- জানুয়ারী ও জুলাই মাসের ১ তারিখ।
আসন সংখ্যা ৪০ জন। ( অনাবাসিক )।
শিক্ষাগত যোগ্যতা -এইস এস সি পাস/সমমান।
কোর্স ফি= ৫০০ টাকা (অফেরৎযোগ্য)

৩।পোষাক তৈরী (মহিলাদের জন্য ।
মেয়াদ = ৩ মাস ।
প্রশিক্ষণের ভর্তি বিজ্ঞপ্তির সময় = প্রতি জুন, সেপ্টেম্বর , ডিসেম্বর এবং মার্চ মাসে।
প্রশিক্ষণ শুরুর সময়= জুলাই, অক্টবর, জানুয়ারি এবং এপ্রিল মাসের  ১ তারিখ।
আসন সংখ্যা=৩০ জন। ( অনাবাসিক )।
শিক্ষাগত যোগ্যতা= ৮ম শ্রেণী পাস।
কোর্স ফি = ৫০/- টাকা।

৪।মৎস চাষ।
মেয়াদ =১ মাস ।
প্রশিক্ষণ শুরুর সময় = প্রতি মাসের ১ তারিখ।
আসন সংখ্যা = ২০ জন।
শিক্ষাগত যোগ্যতা = ৮ম শ্রেণী পাস।
কোর্স ফি = ৫০ টাকা।

৫।কম্পিউটার বেসিক এন্ড আইসিটি এ্যাপ্লিকেশন।
মেয়াদ =৬ মাস ।
প্রশিক্ষণের ভর্তি বিজ্ঞপ্তির সময় = প্রতি ডিসেম্বর ও জুন মাসে।
প্রশিক্ষণ শুরুর সময় = জানুয়ারী ও জুলাই  মাসের ১ তারিখ।
আসন সংখ্যা = ৭০ জন।
শিক্ষাগত যোগ্যতা = এইচ এস সি  পাস/সমমান।
কোর্স ফি = ১০০০ টাকা (অফেরৎযোগ্য)

৬।রেফ্রিজারেশন এন্ড এয়ারকন্ডিশনিং ।
মেয়াদ =৬ মাস ।
প্রশিক্ষণের ভর্তি বিজ্ঞপ্তির সময় = প্রতি ডিসেম্বর ও জুন মাসে।
প্রশিক্ষণ শুরুর সময় = প্রতি জানুয়ারী – জুলাই  মাসের ১ তারিখ।
আসন সংখ্যা = ৩০ জন।
শিক্ষাগত যোগ্যতা = ৮ম শ্রেণী পাস।
কোর্স ফি = ৩০০ টাকা (অফেরৎযোগ্য)।

৭।ইলেক্ট্রনিক্স ।
মেয়াদ =৬ মাস ।
প্রশিক্ষণের ভর্তি বিজ্ঞপ্তির সময় = প্রতি ডিসেম্বর ও জুন মাসে।
প্রশিক্ষণ শুরুর সময় = প্রতি জানুয়ারী – জুলাই  মাসের ১ তারিখ।
আসন সংখ্যা = ৩০ জন।
শিক্ষাগত যোগ্যতা = ৮ম শ্রেণী পাস।
কোর্স ফি = ৩০০ টাকা (অফেরৎযোগ্য)।

৮।ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড হাউজ ওয়ারিং ।
মেয়াদ =৬ মাস ।
প্রশিক্ষণের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি সময় =প্রতি ডিসেম্বর ও জুন মাসে।
প্রশিক্ষণ শুরুর সময় = প্রতি জানুয়ারী ,  জুলাই  মাসের ১ তারিখ।
আসন সংখ্যা = ৩০ জন।
শিক্ষাগত যোগ্যতা = ৮ম শ্রেণী পাস।
কোর্স ফি = ৩০০ টাকা (অফেরৎযোগ্য)।

খ)  অপ্রাতিষ্ঠানিক ( ভ্রাম্যমান ) ট্রেড সমূহঃসাধারণত উপজেলা পর্যায়ে ৭ দিন  থেকে  ১ মাস মেয়াদী অপ্রাতিষ্ঠানিক বা ভ্রাম্যমান প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা যুব সংগঠন / ক্লাবে এ প্রশিক্ষণের ভেন্যু হিসেবে ব্যাবহার করা হয়।যেহেতু প্রত্যন্ত এলাকায় গিয়ে প্রশিক্ষন প্রদান করা হয় সেহেতু বেকার যুবদের এ প্রশিক্ষণ গ্রহন খরচ ও সময় কম হয়। অপ্রাতিষানিক প্রশিক্ষণ গ্রহনে বেকার যুবদের কোন প্রকার প্রশিক্ষণ ফি প্রদান করতে হয় না । যে সমস্ত ট্রেডে অপ্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয় তা নিম্নরূপঃ
পারিবারিক হাঁস মুরগি পালন।
গরু মোটা-তাজা করন ।
গাভি পালন ।
বসত বাড়ীতে সব্জী চাষ ।
নার্সারি বনায়ন ।
ছাগল পালন ।
মৎস চাষ ।
পোষাক তৈরি ।
এবং স্থানীয় চাহিদার ভিত্তিতে ট্রড নির্ধারন করে প্রশিক্ষণ দেয়া হয় ।

ঋণ কার্যক্রমঃ
 ঋন কর্মসূচিযুব উন্নয়ন অধিদপ্তর সাধারণত দুই  ধরণের ঋণ দিয়ে থাকে ।
১) ব্যক্তি ঋণ।
২) গ্রুপ ঋণব্যক্তি ঋন/যুব ঋন ঃ- শুধু যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহনের পর লাভ জনক প্রকল্প গ্রহণকারীকে এ ঋণ প্রদান করা হয় । ব্যক্তি শ্রেণী ঋণ আবার দুই প্রকার ।

1) প্রাতিষ্ঠানিক ঃ প্রাতিষ্ঠানিক ট্রেডে প্রশিক্ষণ গ্রহণকারীর অনুকূলে যে ঋণ প্রদান করা হয় এবং যার পরিমান  সর্বোচ্চ ৭৫,০০০/=(পঁচাত্তর হাজার ) টাকা ।2) অপ্রাতিষ্ঠানিক ট্রেডে প্রশিক্ষণ গ্রহণকারি যুবদের প্রকল্পের কলেবর বৃদ্ধির জন্য সর্বোচ্চ ৫০,০০০/-(পঞ্চাশ হাজার) টাকা পর্যন্ত এ শ্রেণীর আওতায় ঋণ প্রদান করা হয় ।সফল ভাবে ঋন পরিশোধ কারীকে ৩ বার ঋন প্রদান করা হয় ।ঋণের সার্ভিস চার্জের পরিমাণ ১০% যা ক্রমহ্রাসমান হারে ৫% এ নির্ধারিত হয় ।গ্রুপ ঋনপরিবারে সদস্যদের নিয়ে গ্রুপ গঠন করে এ প্রকারের ঋন দেয়া হয়। এ ঋণ পরিবার ভিত্তিক  প্রদান করা হয় । পারিবারিক ঐতিহ্য রক্ষা  ও মুল্যবোধ  সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে পারিবারিক সম্প্রিতি , শ্রদ্ধাবোধ জাগিয়ে তোলার মাধ্যমে  পরিবারকে উন্নয়নের একক হিসেবে প্রাধান্য দিয়ে  স্বকর্মসংস্থান সৃষ্টিই এ প্রকার ঋণ কর্মসূচির মুল লক্ষ্য ।
কর্মসূচির আওতায় ৫ জন সদস্য নিয়ে ১ট গ্রুপ এবং ৮-১০ টি গ্রুপ নিয়ে ১ টি কেন্দ্র গঠন করা হয়।প্রতি সদস্য ১ম দফায় ৮০০০/ টাকা করে ঋন দেয়।

যোগাযোগের ঠিকানা:
 উক্ত প্রশিক্ষণ সমুহ  গ্রহণে আগ্রহী পিরোজপুর জেলার বেকার যুব/যুব মহিলা গন  যোগাযোগ করবেন।
উপ-পরিচালক
যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর
পিরোজপুর পৌরবাস স্ট্যান্ড রোড,
পিরোজপুর।
টেলিফোন : ০৪৬১-৬২৫০০।টেলিফোন:  ০৪৬১- ৬২৬২০।
অথবা
উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার কার্যালয়,
পিরোজপুর জেলার সকল উপজেলা।

লিখেছেন:সিরাজুম মুনিরা

0/Post a Comment/Comments

Previous Post Next Post